Sunday , February 25 2024
সর্বশেষ

সূরা ক্বাফ

শ্রেণীঃ মাক্কী সূরা
নামের অর্থঃ আরবি বর্ণমালার একটি বর্ণ হচ্ছে ক্বাফ
সূরার ক্রমঃ ৫০
আয়াতের সংখ্যাঃ ৪৫

← পূর্ববর্তী সূরা সূরা আল-হুজুরাত
পরবর্তী সূরা → সূরা আয-যারিয়াত

নাযিল হওয়ার সময়-কালঃ
ঠিক কোন সময় এ সূরা নাযিল হয়েছে তা কোন নির্ভরযোগ্য বর্ণনা থেকে জানা যায় না। তবে এর বিষয়বস্তু সম্পর্কে চিন্তা-ভাবনা করলে বুঝা যায়, এটি মক্কী যুগের দ্বিতীয় পর্যায়ে নাযিল হয়েছে। মক্কী যুগের দ্বিতীয় পর্যায় নবুওয়াতের তৃতীয় সন থেকে শুরু করে পঞ্চম সন পর্যন্ত বিস্তৃত। বিভিন্ন বৈশিষ্ট্যের প্রতি লক্ষ রেখে বিচার করে অনুমান করা হয় যে, এই সূরাটি নবুওয়াতের পঞ্চম বছরে নাযিল হয়েছিলো। এ সময় ইসলামবিরোধীদের আচরণ বেশ বিস্তৃতি লাভ করেছিল; তবে তখনো মুসলমানদের প্রতি জুলুম-নির্যাতন শুরু হয়নি।

বিষয়বস্তু ও মূল বক্তব্যঃ

নির্ভরযোগ্য বর্ণনাসমূহ থেকে জানা যায় যে, রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম অধিকাংশ ক্ষেত্রে দু’ঈদের নামাযে এ সূরা পড়তেন ।

উম্মে হিশাম ইবনে হারেসা নাম্নী রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের প্রতিবেশিনী এক মহিলা বর্ণনা করেছেন যে, প্রায়ই আমি নবীর মুখ থেকে জুমআর খুতবায় এ সূরাটি শুনতাম এবং শুনতে শুনতেই তা আমার মুখস্থ হয়েছে। অপর কিছু রেওয়ায়াতে আছে যে, তিনি বেশির ভাগ ফজরের নামাযেও এ সূরাটি পাঠ করতেন। এ থেকে বিষয়টি পরিষ্কার হয়ে যায় যে, নবীর দৃষ্টিতে এটি ছিল একটি গুরুত্বপূর্ণ সূরা। সে জন্য এর বিষয়বস্তু অধিক সংখ্যক লোকের কাছে পৌছানোর জন্য বারবার চেষ্টা করতেন।

সূরাটি মনোনিবেশ সহকারে পাঠ করলে এর গুরুত্বের কারণ সহজেই উপলব্ধি করা যায়। গোটা সূরার আলোচ্য বিষয় হচ্ছে আখেরাত। রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম মক্কা মুয়াযযমায় দাওয়াতের কাজ শুরু করলে মানুষের কাছে তার যে কথাটি সবচেয়ে বেশি অদ্ভুত মনে হয়েছিল তা হচ্ছে, মৃত্যুর পর পুনরায় মানুষকে জীবিত করে উঠানো হবে এবং তাদেরকে নিজের কৃতকর্মের হিসেব দিতে হবে। লোকজন বলতো, এটা তো একেবারেই অসম্ভব ব্যাপার। এরূপ হতে পারে বলে বিবেক-বুদ্ধি বিশ্বাস করে না। আমাদের দেহের প্রতিটি অণু-পরমাণু যখন মাটিতে মিশে বিলীন হয়ে যাবে তখন হাজার হাজার বছর অতিক্রান্ত হওয়ার পর ঐসব বিক্ষিপ্ত অংশকে পুনরায় একত্রিত করে আমাদের দেহকে পুনরায় তৈরি করা হবে এবং আমরা জীবিত হয়ে যাব তা কি করে সম্ভব? এর জবাবে আল্লাহ তা’আলার পক্ষ থেকে এ ভাষণটি নাযিল হয়। এতে অত্যন্ত সংক্ষিপ্তভাবে ছোট ছোট বাক্যে একদিকে আখেরাতের সম্ভাব্যতা ও তা সংঘটিত হওয়া সম্পর্কে প্রমাণাদি পেশ করা হয়েছে। অপরদিকে মানুষকে এ মর্মে সতর্ক করে দেয়া হয়েছে যে, তোমরা বিস্মিত হও, বিবেক-বুদ্ধি বিরোধী মনে করো কিংবা মিথ্যা বলে মনে করো তাতে কোন অবস্থায়ই সত্য, পরিবর্তিত হতে পারে না। সত্য তথা অকাট্য ও অটল সত্য হচ্ছে এই যে, তোমাদের দেহের এক একটি অণু-পরমাণু যা মাটিতে বিলীন হয়ে যায় তা কোথায় গিয়েছে এবং কি অবস্থায় কোথায় আছে সে সম্পর্কে আল্লাহ অবহিত আছেন। বিক্ষিপ্ত এসব অণু-পরমাণু পুনরায় একত্রিত হয়ে যাওয়া এবং তোমাদেরকে ইতিপূর্বে যেভাবে সৃষ্টি করা হয়েছিল ঠিক সেভাবে পুনরায় সৃষ্টি করার জন্য আল্লাহ তা’আলার একটি ইংগিতই যথেষ্ট। অনুরূপভাবে তোমাদের ধারণাও একটি ভ্রান্তি ছাড়া আর কিছুই নয় যে, এখানে তোমাদের লাগামহীন উটের মত ছেড়ে দেয়া হয়েছে, কারো কাছে তোমাদের জবাবদিহি করতে হবে না। প্রকৃত ব্যাপার এই যে, আল্লাহ তা’আলা নিজেও সরাসরি তোমাদের প্রতিটি কথা ও কাজ সম্পর্কে এমনকি তোমাদের মনের মধ্যে জেগে ওঠা সমস্ত ধারণা ও কল্পনা পর্যন্ত অবহিত আছেন। তাছাড়া তাঁর ফেরেশতারাও তোমাদের প্রত্যেকের সাথে থেকে তোমাদের সমস্ত গতিবিধি রেকর্ড করে সংরক্ষিত করে যাচ্ছে। যেভাবে বৃষ্টির একটি বিন্দু পতিত হওয়ার পর মাটি ফুড়ে উদ্ভিদরাজির অঙ্কুর বেরিয়ে আসে ঠিক তেমনি নির্দিষ্ট সময় আসা মাত্র তাঁর একটি মাত্র আহবানে তোমরাও ঠিক তেমনি বেরিয়ে আসবে। আজ তোমাদের বিবেক-বুদ্ধির ওপর গাফলতের যে পর্দা পড়ে আছে তোমাদের সামনে থেকে সেদিন তা অপসারিত হবে এবং আজ যা অস্বীকার করছো সেদিন তা নিজের চোখে দেখতে পাবে। তখন তোমরা জানতে পারবে, পৃথিবীতে তোমরা দায়িত্বহীন ছিলে না, বরং নিজ কাজ-কর্মের জন্য দায়ী ছিলে। পুরস্কার ও শাস্তি, আযাব ও সওয়াব এবং জান্নাত ও দোযখ যেসব জিনিসকে আজ তোমরা আজব কল্প কাহিনী বলে মনে করছো সেদিন তা সবই তোমাদের সামনে বাস্তব সত্য হয়ে দেখা দেবে। যে জাহান্নামকে আজ বিবেক-বুদ্ধির বিরোধী বলে মনে করো সত্যের সাথে শত্রুতার অপরাধে সেদিন তোমাদের সেই জাহান্নামেই নিক্ষেপ করা হবে। আর যে জান্নাতের কথা শুনে আজ তোমরা বিস্মিত হচ্ছো মহা দয়ালু আল্লাহকে ভয় করে সঠিক পথে ফিরে আসা লোকেরা সেদিক তোমাদের চোখের সামনে সেই জান্নাতে চলে যাবে।

بِسْمِ اللَّهِ الرَّحْمَٰنِ الرَّحِيمِ
আরবি উচ্চারণ বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম বাংলা অনুবাদ পরম করুণাময় অতি দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি। ق وَالْقُرْآنِ الْمَجِيدِ50.1 আরবি উচ্চারণ ৫০.১। ক্বা-ফ্; অল্কুরআ-নিল্ মাজ্বীদ্। বাংলা অনুবাদ ৫০.১ কাফ; মর্যাদাপূর্ণ কুরআনের কসম। بَلْ عَجِبُوا أَنْ جَاءَهُمْ مُنْذِرٌ مِنْهُمْ فَقَالَ الْكَافِرُونَ هَذَا شَيْءٌ عَجِيبٌ50.2 আরবি উচ্চারণ ৫০.২। বাল্ ‘আজ্বিবূ য় আন্ জ্বা-য়াহুম্ মুন্যিরুম্ মিন্হুম্ ফাক্ব-লাল্ কা-ফিরূনা হা-যা- শাইয়ুন্ ‘আজ্বীব। বাংলা অনুবাদ ৫০.২ বরং তারা বিস্মিত হয়েছে যে, তাদের মধ্য থেকে একজন সতর্ককারী তাদের কাছে এসেছে। অতঃপর কাফিররা বলল, ‘এতো এক বিস্ময়কর বস্তু’! أَئِذَا مِتْنَا وَكُنَّا تُرَابًا ذَلِكَ رَجْعٌ بَعِيدٌ50.3 আরবি উচ্চারণ ৫০.৩। আইযা-মিত্না-অকুন্না-তুর-বান্ যা-লিকা রাজ্ব ‘উম্ বা‘ঈদ্। বাংলা অনুবাদ ৫০.৩ ‘আমরা যখন মারা যাব এবং মাটিতে পরিণত হব তখনো কি (আমরা পুনরুত্থিত হব)? এ ফিরে যাওয়া সুদূরপরাহত’। قَدْ عَلِمْنَا مَا تَنْقُصُ الْأَرْضُ مِنْهُمْ وَعِنْدَنَا كِتَابٌ حَفِيظٌ50.4 আরবি উচ্চারণ ৫০.৪। ক্বদ্ ‘আলিম্না-মা-তান্কুছুল্ র্আদু মিন্হুম্ অ‘ইন্দানা-কিতা-বুন্ হাফীজ্। বাংলা অনুবাদ ৫০.৪ অবশ্যই আমি জানি মাটি তাদের থেকে যতটুকু ক্ষয় করে। আর আমার কাছে আছে অধিক সংরক্ষণকারী কিতাব। بَلْ كَذَّبُوا بِالْحَقِّ لَمَّا جَاءَهُمْ فَهُمْ فِي أَمْرٍ مَرِيجٍ50.5 আরবি উচ্চারণ ৫০.৫। বাল্ কায্যাবূ বিল্হাক্ব ক্বি লাম্মা- জ্বা-য়াহুম্ ফাহুম্ ফী য় আম্রীম্ মারীজ্ব । বাংলা অনুবাদ ৫০.৫ বরং তারা সত্যকে অস্বীকার করেছে, যখনই তাদের কাছে সত্য এসেছে। অতএব তারা সংশয়যুক্ত বিষয়ের মধ্যে রয়েছে। أَفَلَمْ يَنْظُرُوا إِلَى السَّمَاءِ فَوْقَهُمْ كَيْفَ بَنَيْنَاهَا وَزَيَّنَّاهَا وَمَا لَهَا مِنْ فُرُوجٍ 50.6 আরবি উচ্চারণ ৫০.৬। আফালাম্ ইয়ান্জুরূ য় ইলাস্ সামা-য়ি ফাওক্বহুম্ কাইফা বানাইনা-হা- অযাইয়্যান্না-হা- অমা- লাহা- মিন্ ফুরূজ্ব । বাংলা অনুবাদ ৫০.৬ তারা কি তাদের উপরে আসমানের দিকে তাকায় না, কিভাবে আমি তা বানিয়েছি এবং তা সুশোভিত করেছি? আর তাতে কোন ফাটল নেই। وَالْأَرْضَ مَدَدْنَاهَا وَأَلْقَيْنَا فِيهَا رَوَاسِيَ وَأَنْبَتْنَا فِيهَا مِنْ كُلِّ زَوْجٍ بَهِيجٍ50.7 আরবি উচ্চারণ ৫০.৭। অল্ র্আদ্বোয়া মাদাদ্না-হা- ওয়া আল্ক্বইনা-ফীহা-রাওয়া-সিয়া অআম্বাত্না-ফীহা-মিন্ কুল্লি যাওজ্বিম্ বাহীজ্ব । বাংলা অনুবাদ ৫০.৭ আর আমি যমীনকে বিস্তৃত করেছি, তাতে পর্বতমালা স্থাপন করেছি এবং তাতে প্রত্যেক প্রকারের সুদৃশ্য উদ্ভিদ উদ্গত করেছি। تَبْصِرَةً وَذِكْرَى لِكُلِّ عَبْدٍ مُنِيبٍ50.8 আরবি উচ্চারণ ৫০.৮। তাব্ছিরতাঁও যিক্র-লিকুল্লি ‘আব্দিম্ মুনীব্। বাংলা অনুবাদ ৫০.৮ আল্লাহ অভিমুখী প্রতিটি বান্দার জন্য জ্ঞান ও উপদেশ হিসেবে। وَنَزَّلْنَا مِنَ السَّمَاءِ مَاءً مُبَارَكًا فَأَنْبَتْنَا بِهِ جَنَّاتٍ وَحَبَّ الْحَصِيدِ50.9 আরবি উচ্চারণ ৫০.৯। অনায্যাল্না- মিনাস্ সামা-য়ি মা-য়াম্ মুবা-রকান্ ফাআম্বাত্না-বিহী জ্বান্না-তিঁও অহাব্বাল্ হাছীদ্। বাংলা অনুবাদ ৫০.৯ আর আমি আসমান খেকে বরকতময় পানি নাযিল করেছি। অতঃপর তা দ্বারা আমি উৎপন্ন করি বাগ-বাগিচা ও কর্তনযোগ্য শস্যদানা। وَالنَّخْلَ بَاسِقَاتٍ لَهَا طَلْعٌ نَضِيدٌ50.10 আরবি উচ্চারণ ৫০.১০। অন্নাখ্লা বা-সিক্ব-তিল্ লাহা-ত্বোয়াল্‘উন্নাদ্বীদ্। বাংলা অনুবাদ ৫০.১০ আর সমুন্নত খেজুরগাছ, যাতে আছে গুচ্ছ গুচ্ছ খেজুর ছড়া, رِزْقًا لِلْعِبَادِ وَأَحْيَيْنَا بِهِ بَلْدَةً مَيْتًا كَذَلِكَ الْخُرُوجُ50.11 আরবি উচ্চারণ ৫০.১১। রিয্ক্বল্ লিল্‘ইবা-দি অআহ্ইয়াইনা-বিহী বাল্দাতাম্ মাইতা-; কাযা-লিকাল্ খুরূজ্ব । বাংলা অনুবাদ ৫০.১১ আমার বান্দাদের জন্য রিয্কস্বরূপ। আর আমি পানি দ্বারা মৃত শহর সঞ্জীবিত করি। এভাবেই উত্থান ঘটবে। كَذَّبَتْ قَبْلَهُمْ قَوْمُ نُوحٍ وَأَصْحَابُ الرَّسِّ وَثَمُودُ50.12 আরবি উচ্চারণ ৫০.১২। কায্যাবাত্ ক্বব্লাহুম্ ক্বওমু নূহিঁও অআছ্হা-র্বু রস্সি অছামূদ্। বাংলা অনুবাদ ৫০.১২ তাদের পূর্বে সত্য প্রত্যাখ্যান করেছিল নূহের সম্প্রদায়, রাস্ এর অধিবাসী ও সামূদ সম্প্রদায়। وَعَادٌ وَفِرْعَوْنُ وَإِخْوَانُ لُوطٍ50.13 আরবি উচ্চারণ ৫০.১৩। অ‘আদুঁও অর্ফি‘আউনু অইখ্ওয়া-নু লূত্ব । বাংলা অনুবাদ ৫০.১৩ ‘আদ, ফির‘আউন ও লূত সম্প্রদায়। وَأَصْحَابُ الْأَيْكَةِ وَقَوْمُ تُبَّعٍ كُلٌّ كَذَّبَ الرُّسُلَ فَحَقَّ وَعِيدِ50.14 আরবি উচ্চারণ ৫০.১৪। অআছ্হা-বুল্ আইকাতি অ ক্বওমু তুব্বা’; কুল্লুন্ কায্যার্বা রুসুলা ফাহাক্ব ক্বা অ‘ঈদ্। বাংলা অনুবাদ ৫০.১৪ আইকার অধিবাসী ও তুব্বা‘ সম্প্রদায়। সকলেই রাসূলদেরকে মিথ্যাবাদী বলেছিল। أَفَعَيِينَا بِالْخَلْقِ الْأَوَّلِ بَلْ هُمْ فِي لَبْسٍ مِنْ خَلْقٍ جَدِيدٍ50.15 আরবি উচ্চারণ ৫০.১৫। আফা‘আয়ীনা বিল্ খল্ক্বিল্ আওয়্যাল্; বাল্হুম্ ফী লাব্সিম্ মিন্ খল্ক্বিন্ জ্বাদীদ্। বাংলা অনুবাদ ৫০.১৫ আমি কি প্রথমবার সৃষ্টি করেই ক্লান্ত হয়ে পড়েছি? বরং তারা নতুন সৃষ্টির বিষয়ে সন্দেহে নিপতিত। وَلَقَدْ خَلَقْنَا الْإِنْسَانَ وَنَعْلَمُ مَا تُوَسْوِسُ بِهِ نَفْسُهُ وَنَحْنُ أَقْرَبُ إِلَيْهِ مِنْ حَبْلِ الْوَرِيدِ50.16 আরবি উচ্চারণ ৫০.১৬। অ লাক্বদ্ খলাক্ব নাল্ ইন্সা-না অনা’লামু মা-তুওয়াস্ ওয়িসু বিহী নাফ্সুহূ অনাহ্নু আক্ব রাবু ইলাইহি মিন্ হাব্লিল্ অরীদ্। বাংলা অনুবাদ ৫০.১৬ আর অবশ্যই আমি মানুষকে সৃষ্টি করেছি এবং তার প্রবৃত্তি তাকে যে কুমন্ত্রণা দেয় তাও আমি জানি। আর আমি তার গলার ধমনী হতেও অধিক কাছে। إِذْ يَتَلَقَّى الْمُتَلَقِّيَانِ عَنِ الْيَمِينِ وَعَنِ الشِّمَالِ قَعِيدٌ50.17 আরবি উচ্চারণ ৫০.১৭। ইয্ ইয়াতালাক্ব ক্বল্ মুতালাক্ব ক্বিইয়া-নি ‘আনিল্ ইয়ামীনি অ‘আনিশ্ শিমা-লি ক্বা‘ঈদ্। বাংলা অনুবাদ ৫০.১৭ যখন ডানে ও বামে বসা দু’জন লিপিবদ্ধকারী পরস্পর গ্রহণ করবে। مَا يَلْفِظُ مِنْ قَوْلٍ إِلَّا لَدَيْهِ رَقِيبٌ عَتِيدٌ50.18 আরবি উচ্চারণ ৫০.১৮। মা-ইয়াল্ফিজু মিন্ ক্বওলিন্ ইল্লা-লাদাইহি রাক্বীবুন্ ‘আতীদ্। বাংলা অনুবাদ ৫০.১৮ সে যে কথাই উচ্চারণ করে তার কাছে সদা উপস্থিত সংরক্ষণকারী রয়েছে। وَجَاءَتْ سَكْرَةُ الْمَوْتِ بِالْحَقِّ ذَلِكَ مَا كُنْتَ مِنْهُ تَحِيدُ50.19 আরবি উচ্চারণ ৫০.১৯। অজ্বা-য়াত্ সাক্রতুল্ মাওতি বিল্হাক্ব ; যা-লিকা মা-কুন্তা মিন্হু তাহীদ্। বাংলা অনুবাদ ৫০.১৯ আর মৃত্যুর যন্ত্রণা যথাযথই আসবে। যা থেকে তুমি পলায়ন করতে চাইতে। وَنُفِخَ فِي الصُّورِ ذَلِكَ يَوْمُ الْوَعِيدِ 50.20 আরবি উচ্চারণ ৫০.২০। অনুফিখা ফিছ্ র্ছূ; যা-লিকা ইয়াওমুল্ অঈ’দ্। বাংলা অনুবাদ ৫০.২০ আর শিংগায় ফুঁক দেয়া হবে। এটাই হল প্রতিশ্র“ত দিন। وَجَاءَتْ كُلُّ نَفْسٍ مَعَهَا سَائِقٌ وَشَهِيدٌ50.21 আরবি উচ্চারণ ৫০.২১। অজ্বা-য়াত্ কুল্লুনাফ্সিম্ মা‘আহা-সা-য়িকু অশাহীদ্। বাংলা অনুবাদ ৫০.২১ আর প্রত্যেক ব্যক্তি উপস্থিত হবে, তার সাথে থাকবে একজন চালক ও একজন সাক্ষী। لَقَدْ كُنْتَ فِي غَفْلَةٍ مِنْ هَذَا فَكَشَفْنَا عَنْكَ غِطَاءَكَ فَبَصَرُكَ الْيَوْمَ حَدِيدٌ50.22 আরবি উচ্চারণ ৫০.২২। লাক্বদ্ কুন্তা ফী গফ্লাতিম্ মিন্ হা-যা- ফাকাশাফ্না- ‘আন্কা গিত্বোয়া-য়াকা ফাবাছোয়ারুকাল্ ইয়াওমা হাদীদ্। বাংলা অনুবাদ ৫০.২২ অবশ্যই তুমি এ দিবস সম্পর্কে উদাসীন ছিলে, অতএব আমি তোমার পর্দা তোমার থেকে উন্মোচন করে দিলাম। ফলে আজ তোমার দৃষ্টি খুব প্রখর। وَقَالَ قَرِينُهُ هَذَا مَا لَدَيَّ عَتِيدٌ50.23 আরবি উচ্চারণ ৫০.২৩। অক্ব-লা ক্বরীনুহূ হা-যা-মা-লাদাইয়্যা আ’তীদ্। বাংলা অনুবাদ ৫০.২৩ আর তার সাথী (ফেরেশতা) বলবে, এই তো আমার কাছে (আমল নামা) প্রস্তুত। أَلْقِيَا فِي جَهَنَّمَ كُلَّ كَفَّارٍ عَنِيدٍ50.24 আরবি উচ্চারণ ৫০.২৪। আল্ক্বিয়া-ফী জ্বাহান্নামা কুল্লা কাফ্ফা-রিন্ ‘আনীদ্। বাংলা অনুবাদ ৫০.২৪ তোমরা জাহান্নামে নিক্ষেপ কর প্রত্যেক উদ্ধত কাফিরকে, مَنَّاعٍ لِلْخَيْرِ مُعْتَدٍ مُرِيبٍ50.25 আরবি উচ্চারণ ৫০.২৫। মান্না-ই’ল্ লিল্খইরি মু’তাদিম্ মুরীবিন্। বাংলা অনুবাদ ৫০.২৫ কল্যাণকর কাজে প্রবল বাধাদানকারী সীমালঙ্ঘনকারী, সন্দেহ পোষণকারীকে। الَّذِي جَعَلَ مَعَ اللَّهِ إِلَهًا آخَرَ فَأَلْقِيَاهُ فِي الْعَذَابِ الشَّدِيدِ50.26 আরবি উচ্চারণ ৫০.২৬। আল্লাযী জ্বা‘আলা মা‘আল্লা-হি ইলা-হান আ-খর ফাআল্ক্বিয়া-হু ফিল্ ‘আযা-বিশ্ শাদীদ্। বাংলা অনুবাদ ৫০.২৬ যে আল্লাহর সাথে অন্য ইলাহ গ্রহণ করেছিল, তোমরা তাকে কঠিন আযাবে নিক্ষেপ কর। قَالَ قَرِينُهُ رَبَّنَا مَا أَطْغَيْتُهُ وَلَكِنْ كَانَ فِي ضَلَالٍ بَعِيدٍ50.27 আরবি উচ্চারণ ৫০.২৭। ক্ব-লা ক্বরীনুহূ রব্বানা-মা য় আত্ব গাইতুহূ অলা-কিন্ কা-না ফী দ্বোয়ালা-লিম্ বা‘ঈদ্। বাংলা অনুবাদ ৫০.২৭ তার সঙ্গী (শয়তান) বলবে, ‘হে আমাদের ‘রব’, আমি তাকে বিদ্রোহী করে তুলিনি, বরং সে নিজেই ছিল সুদূর পথভ্রষ্টতার মধ্যে’। قَالَ لَا تَخْتَصِمُوا لَدَيَّ وَقَدْ قَدَّمْتُ إِلَيْكُمْ بِالْوَعِيدِ 50.28 আরবি উচ্চারণ ৫০.২৮। ক্ব-লা লা-তাখ্তাছিমূ লাদাইয়্যা অক্বদ্ ক্বদ্দাম্তু ইলাইকুম্ বিল্ অ‘ঈদ্। বাংলা অনুবাদ ৫০.২৮ আল্লাহ বলবেন, ‘তোমরা আমার কাছে বাক-বিতণ্ডা করো না। অবশ্যই আমি পূর্বেই তোমাদেরকে সতর্ক করে দিয়েছিলাম’। مَا يُبَدَّلُ الْقَوْلُ لَدَيَّ وَمَا أَنَا بِظَلَّامٍ لِلْعَبِيدِ50.29 আরবি উচ্চারণ ৫০.২৯। মা-ইয়ুবাদ্দালুল্ ক্বওলু লাদাইয়্যা অমা য় আনা বিজোয়াল্লা-মিল্ লিল্‘আবীদ্। বাংলা অনুবাদ ৫০.২৯ ‘আমার কাছে কথা রদবদল হয় না, আর আমি বান্দার প্রতি যুল্মকারীও নই’। يَوْمَ نَقُولُ لِجَهَنَّمَ هَلِ امْتَلَأْتِ وَتَقُولُ هَلْ مِنْ مَزِيدٍ50.30 আরবি উচ্চারণ ৫০.৩০। ইয়াওমা নাক্ব লু লিজ্বাহান্নামা হালিম্ তালাতি অ তাক্ূলু হাল্ মিম্ মাযীদ্। বাংলা অনুবাদ ৫০.৩০ সেদিন আমি জাহান্নামকে বলব, ‘তুমি কি পরিপূর্ণ হয়েছ’? আর সে বলবে, ‘আরো বেশি আছে কি’? وَأُزْلِفَتِ الْجَنَّةُ لِلْمُتَّقِينَ غَيْرَ بَعِيدٍ50.31 আরবি উচ্চারণ ৫০.৩১। অউয্লিফাতিল্ জ্বান্নাতু লিল্মুত্তাক্বীনা গইরা বা‘ঈদ্ । বাংলা অনুবাদ ৫০.৩১ আর জান্নাতকে মুত্তাকীদের অদূরে, কাছেই আনা হবে। هَذَا مَا تُوعَدُونَ لِكُلِّ أَوَّابٍ حَفِيظٍ50.32 আরবি উচ্চারণ ৫০.৩২। হা-যা-মা তূ‘আদূনা লিকুল্লি আওয়্যা-বিন্ হাফীজ্। বাংলা অনুবাদ ৫০.৩২ এটাই, যার ওয়াদা তোমাদেরকে দেয়া হয়েছিল। প্রত্যেক আল্লাহ অভিমুখী অধিক সংরক্ষণশীলদের জন্য। مَنْ خَشِيَ الرَّحْمَنَ بِالْغَيْبِ وَجَاءَ بِقَلْبٍ مُنِيبٍ50.33 আরবি উচ্চারণ ৫০.৩৩। মান্ খাশির্য়া রহ্মা-না বিল্গইবি অজ্বা-য়া বিক্বল্বিম্ মুনীব। বাংলা অনুবাদ ৫০.৩৩ যে না দেখেই রহমানকে ভয় করত এবং বিনীত হৃদয়ে উপস্থিত হত। ادْخُلُوهَا بِسَلَامٍ ذَلِكَ يَوْمُ الْخُلُودِ50.34 আরবি উচ্চারণ ৫০.৩৪। নিদ্খুলূহা- বিসালা- ম্; যা-লিকা ইয়াওমুল্ খুলূদ্ । বাংলা অনুবাদ ৫০.৩৪ তোমরা তাতে শান্তির সাথে প্রবেশ কর। এটাই স্থায়িত্বের দিন। لَهُمْ مَا يَشَاءُونَ فِيهَا وَلَدَيْنَا مَزِيدٌ50.35 আরবি উচ্চারণ ৫০.৩৫। লাহুম্ মা-ইয়াশা-য়ূনা ফীহা- ওয়ালাদাইনা- মাযীদ্। বাংলা অনুবাদ ৫০.৩৫ তারা যা চাইবে, সেখানে তাদের জন্য তাই থাকবে এবং আমার কাছে রয়েছে আরও অধিক। وَكَمْ أَهْلَكْنَا قَبْلَهُمْ مِنْ قَرْنٍ هُمْ أَشَدُّ مِنْهُمْ بَطْشًا فَنَقَّبُوا فِي الْبِلَادِ هَلْ مِنْ مَحِيصٍ 50.36 আরবি উচ্চারণ ৫০.৩৬। অকাম্ আহ্লাক্না- ক্ব্ব্লাহুম্ মিন্ র্ক্বানিন্ হুম্ আশাদ্দু মিন্হুম্ বাতশান্ ফানাক্ব্ক্ববূ ফিল্ বিলা-দ্; হাল্ মিম্ মাহীছ্। বাংলা অনুবাদ ৫০.৩৬ আমি তাদের পূর্বে বহু প্রজন্মকে ধ্বংস করে দিয়েছি যারা পাকড়াও করার ক্ষেত্রে এদের তুলনায় ছিল প্রবলতর, তারা দেশ-বিদেশ চষে বেড়াত। তাদের কি কোন পলায়নস্থল ছিল? إِنَّ فِي ذَلِكَ لَذِكْرَى لِمَنْ كَانَ لَهُ قَلْبٌ أَوْ أَلْقَى السَّمْعَ وَهُوَ شَهِيدٌ50.37 আরবি উচ্চারণ ৫০.৩৭। ইন্না ফী যা-লিকা লাযিক্র-লিমান্ কা-না লাহূ ক্বল্বুন্ আও আল্ক্বস্ সাম্‘আ অহুওয়া শাহীদ্। বাংলা অনুবাদ ৫০.৩৭ নিশ্চয় এতে উপদেশ রয়েছে তার জন্য, যার রয়েছে অন্তর অথবা যে নিবিষ্টচিত্তে শ্রবণ করে। وَلَقَدْ خَلَقْنَا السَّمَاوَاتِ وَالْأَرْضَ وَمَا بَيْنَهُمَا فِي سِتَّةِ أَيَّامٍ وَمَا مَسَّنَا مِنْ لُغُوبٍ50.38 আরবি উচ্চারণ ৫০.৩৮। অলাক্বদ্ খলাক্ব নাস্ সামা-ওয়া-তি অল্ র্আদ্বোয়া অমা-বাইনাহুমা-ফী সিত্তাতি আইয়্যা-মিঁও অমা-মাস্ সানা-মিল্ লুগূব্। বাংলা অনুবাদ ৫০.৩৮ আর অবশ্যই আমি আসমানসমূহ ও যমীন এবং এতদোভয়ের মধ্যস্থিত সবকিছু ছয় দিনে সৃষ্টি করেছি। আর আমাকে কোনরূপ ক্লান্তি স্পর্শ করেনি। فَاصْبِرْ عَلَى مَا يَقُولُونَ وَسَبِّحْ بِحَمْدِ رَبِّكَ قَبْلَ طُلُوعِ الشَّمْسِ وَقَبْلَ الْغُرُوبِ50.39 আরবি উচ্চারণ ৫০.৩৯। ফার্ছ্বি ‘আলা-মা-ইয়াক্ব ূলূনা অসাব্বিহ্ বিহাম্দি রব্বিকা ক্বব্লা তুলূ‘ইশ্ শাম্সি অক্বব্লাল্ গুরূব্। বাংলা অনুবাদ ৫০.৩৯ অতএব এরা যা বলে, তাতে তুমি ধৈর্যধারণ কর এবং সূর্য উদয়ের পূর্বে ও অস্তমিত হওয়ার পূর্বে তুমি তোমার রবের প্রশংসাসহ তাসবীহ পাঠ কর। وَمِنَ اللَّيْلِ فَسَبِّحْهُ وَأَدْبَارَ السُّجُودِ50.40 আরবি উচ্চারণ ৫০.৪০। অমিনাল্ লাইলি ফাসাব্বিহ্হু অআদ্বা-রাস্ সুজ্ব ূদ্। বাংলা অনুবাদ ৫০.৪০ এবং রাতের একাংশেও তুমি তাঁর তাসবীহ পাঠ কর এবং সালাতের পশ্চাতেও। وَاسْتَمِعْ يَوْمَ يُنَادِي الْمُنَادِي مِنْ مَكَانٍ قَرِيبٍ50.41 আরবি উচ্চারণ ৫০.৪১। অস্তামি’ ইয়াওমা ইয়ুনা-দিল্ মুনা-দি মিম্ মাকা-নিন্ ক্বরীব্। বাংলা অনুবাদ ৫০.৪১ মনোনিবেশ কর, যেদিন একজন ঘোষক নিকটবর্তী কোন স্থান থেকে ডাকতে থাকবে। يَوْمَ يَسْمَعُونَ الصَّيْحَةَ بِالْحَقِّ ذَلِكَ يَوْمُ الْخُرُوجِ 50.42 আরবি উচ্চারণ ৫০.৪২। ইয়াওমা ইয়াস্মা‘ঊনাছ্ ছোয়াইহাতা বিল্হাক্ব ্; যা-লিকা ইয়াওমুল্ খুরূজ্ব্ ্। বাংলা অনুবাদ ৫০.৪২ সেদিন তারা সত্যিসত্যিই মহাচিৎকার শুনবে। সেটিই উত্থিত হবার দিন। إِنَّا نَحْنُ نُحْيِي وَنُمِيتُ وَإِلَيْنَا الْمَصِيرُ50.43 আরবি উচ্চারণ ৫০.৪৩। ইন্না-নাহ্নু নুহ্য়ী অনুমীতু অইলাইনাল্ মাছীর । বাংলা অনুবাদ ৫০.৪৩ আমিই জীবন দেই এবং আমিই মৃত্যু ঘটাই, আর আমার দিকেই চূড়ান্ত প্রত্যাবর্তন। يَوْمَ تَشَقَّقُ الْأَرْضُ عَنْهُمْ سِرَاعًا ذَلِكَ حَشْرٌ عَلَيْنَا يَسِيرٌ50.44 আরবি উচ্চারণ ৫০.৪৪। ইয়াওমা তাশাক্ব ক্বক্ব ল্ র্আদ্বু ‘আন্হুম্ সির-‘আ-; যা-লিকা হাশ্রুন্ ‘আলাইনা- ইয়ার্সী। বাংলা অনুবাদ ৫০.৪৪ সেদিন তাদের থেকে যমীন বিদীর্ণ হবে এবং লোকেরা দিগ¦দিক ছুটাছুটি করতে থাকবে। এটি এমন এক সমাবেশ যা আমার পক্ষে অতীব সহজ। نَحْنُ أَعْلَمُ بِمَا يَقُولُونَ وَمَا أَنْتَ عَلَيْهِمْ بِجَبَّارٍ فَذَكِّرْ بِالْقُرْآنِ مَنْ يَخَافُ وَعِيدِ 50.45 আরবি উচ্চারণ ৫০.৪৫। নাহ্নু আ’লামু বিমা- ইয়াকুলূনা অমা য় আন্তা ‘আলাইহিম্ বিজ্বব্বা-রিন্ ফাযার্ক্কি বিল্ কুরআ-নি মাইঁ ইয়াখ-ফু অ‘ঈদ্। বাংলা অনুবাদ ৫০.৪৫ এরা যা বলে আমি তা সবচেয়ে ভাল জানি। আর তুমি তাদের উপর কোন জোর- জবরদস্তিকারী নও। সুতরাং যে আমার ধমককে ভয় করে তাকে কুরআনের সাহায্যে উপদেশ দাও।

About Abdul Latif Sheikh

Check Also

idf image

সুরা আল ইমরান আয়াত ১০২-১০৫ এর তাফসির

یٰۤاَیُّهَا الَّذِیۡنَ اٰمَنُوا اتَّقُوا اللّٰهَ حَقَّ تُقٰتِهٖ وَ لَا تَمُوۡتُنَّ اِلَّا وَ اَنۡتُمۡ مُّسۡلِمُوۡنَ  وَ …

সুরা ইখলাস এর ফযিলত

সুরা আন আনফাল

সুরা আন আনফাল নামের অর্থঃ যুদ্ধ লব্ধ সম্পদ শ্রেনীঃ মাদানী সুরা ক্রমঃ ৮ আয়াত সংখ্যাঃ …

সুরা ইখলাস এর ফযিলত

সূরা আত-তাওবাহ্‌

সূরা আত-তাওবাহ্‌ শ্রেণীঃ মাদানীনামের অর্থঃ অনুশোচনাঅন্য নামঃ আল-বারাহ্ (শাস্তি থেকে অব্যাহতি) সূরার ক্রমঃ ৯আয়াতের সংখ্যাঃ …

Leave a Reply

Your email address will not be published.